বাংলার ভূমি প্রাচীন ঐতিহ্য, সংস্কৃতির ধারক ও বাহক। বাংলাদেশের ভূমিতে প্রাচীনকাল থেকে নির্মিত হচ্ছে অসংখ্য স্থাপনা, জমিদার বাড়ি। কালের স্রোতে অনেক নির্মাণ ম্লান হয়ে গেলেও স্থাপনাগুলোর তাৎপর্য, মাধুর্য রয়ে গেছে। প্রাচীন স্থাপনার পাশাপাশি বাংলাদেশের বিভিন্ন জেলায় নির্মিত হচ্ছে আধুনিক স্থাপনা। গাইবান্ধার ফ্রেন্ডশিপ সেন্টার, নারায়ণগঞ্জের তাজমহল, হবিগঞ্জের বিবিয়ানা গ্যাস ফিল্ড,  বরিশালের গুটিয়া জামে মসজিদ ইত্যাদি এক্ষেত্রে উল্লেখযোগ্য। আধুনিক স্থাপনাগুলোও এক সময় কালের ধারক হয়ে থাকবে। সময়ের সাথে সাথে এই স্থানগুলো সাধারণ মানুষের কাছে জনপ্রিয় হচ্ছে। স্বল্প…

 রুপসী বাংলার মাঠ, ঘাট, দ্বীপ ও চরের চারপাশ প্রাকৃতিক সৌন্দর্যে ঘেরা। সবুজের সমারোহের বিশাল ঐশ্বর্যের দিকে যে নাবিক পাখির নীড়ের মতো চোখ তুলে তাকায় সে নাবিক কখনো অসুখী থাকতে পারে না, হতাশ হতে পারে না, ক্লান্ত হতে পারে না। বাংলার আনাচেকানাচে শিশিরের ফোঁটায়ও যেন কবিতারা এসে জমা হয়, সৌন্দর্য এসে জমা হয়। পলিমাটি, নদী, চরের মাদকতায় চোখ ডুবাতে বাধ্য এদেশের সাধারণ মানুষ। অথচ অজানার কারণে মোহনীয় অনেক স্থান ভ্রমণপিপাসুদের চোখের আড়ালে পড়ে যায়। তাই আজ…

ঢাকা থেকে রংপুরের দূরত্ব প্রায় ৩৩৫ কিলোমিটার। সড়ক বা রেল পথে পৌঁছাতে সময় লাগে ১০ থেকে ১২ ঘণ্টা (কখনো কখনো তার থেকেও বেশি)। বাংলাদেশের উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলের এই জেলাটিকে বৃহত্তর বঙ্গ প্লাবন ভূমির অংশ মনে করা হয়। ভূতাত্ত্বিক দৃষ্টিকোণ থেকে এই জেলাটি দেশের বহু জেলা থেকে একদমই আলাদা। বন্যায় রংপুরের বেশ কিছু অঞ্চল প্রচুর ক্ষতির সম্মুখীন হয়, বিশেষ করে নীলফামারী ও কুড়িগ্রামের সীমান্তবর্তী চরগুলো। বিগত বন্যায় ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণটা পূর্বের তুলনায় বেশি ছিল এবং আমাদের রংপুর যাত্রাটা শুরু…

অধিকাংশ শিক্ষার্থী কলেজে অধ্যয়নকালে সিদ্ধান্ত নেয় দেশের বাইরে গিয়ে বাকি পড়াশোনা শেষ করার। তাদের মধ্যে কেউ কেউ চলেও যায় দেশের বাইরে ভালো কোনো বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশোনার জন্য। এই সিদ্ধান্ত আপনাকে নতুন করে চেনাবে নিজেকে এবং পরিচয় করাবে সম্পূর্ণ অপরিচিত একটি দেশ ও সেখানকার নতুন পরিবেশের সাথে। আপনি যেমন নতুন পরিবেশে পড়ার সুযোগ পাবেন, তেমনি সুযোগ পাবেন নতুন নতুন রান্নার স্বাদ, ভিন্ন খাবার চেখে দেখা, ভিন্ন জীবন ধারা ও ভিন্ন সংস্কৃতি বোঝার সুযোগ। দেশের বাইরে পড়াশোনার জন্য…

ছোট নদী ঢেউফা বর্ষাকালে কানায় কানায় ভরে ওঠে। কিন্তু দিনের শেষে ভাটা পড়ে। শুকিয়ে যায় এ নদীর পানি। তবে খরস্রোতা এ নদীর পানির গতি কখনোই কমে না। সারা বছরই হেঁটে পার হওয়া যায়। ক’বছর ধরে এ নদীর দু’পাশে দুটি ব্রীজ নির্মিত হওয়ায় এখন আর নদীতে নামতে হয় না। ঢেউফার বুক জুড়ে বিশাল বালুচর। নির্মাণ কাজে ব্যবহারের জন্য শহরে নিয়ে যাচ্ছে সেই বালি। ঢেউফার এই বালুচর যেন আদিবাসীদের গ্রাম বাবেলাকোনার কুল ঘেষাঁ বিকল্প সমুদ্র সৈকত। ঢেউফার…

নিজের দেশকে, দেশের প্রকৃতিকে অনেক বেশি ভালোবাসি। অবাক হই দেশের বিভিন্ন রত্নভাণ্ডার দেখে। তবে পাশের দেশ ভারতের একটা দিক আমায় বেশ অবাক করে, একই দেশে একই সময়ে হরেক রকমের আবহাওয়া, একটি আরেকটির সম্পূর্ণ বিপরীত। ভারতে উত্তরের দিকে গেলে যেখানে শুভ্র বরফ পাওয়া যাবে, সেখানে যত দক্ষিণের দিকে যাওয়া হয় গরমের উত্তাপ বাড়তে থাকে। একই সময়ে পাহাড়ের উঁচুতে বরফ দেখা যায়, আবার সেই সময়েই দেখা মেলে ধূ ধূ মরুভুমির বুকে উটের পদচারণার। হিমাচলে গেলেও মরুভূমি দেখা…

রোজার ঈদের ছুটিতে আমাদের এটি একমাত্র রিল্যাক্স ট্রিপ প্ল্যান। রোজার ঈদের ছুটিতে আমাদের আরো ২টি প্ল্যান থাকলেও দুটোই ট্রেকিং ইভেন্ট হওয়াতে যারা ট্রেকিংয়ে অভ্যস্ত নয় তারা অনুরোধ করেছে যে একটা রিল্যাক্স ট্রিপ দিতে এবং রিল্যাক্স ট্রিপ সাজেকের চাইতে ভালো কোনো জায়গা হতে পারে না, তাই থাকছে সাজেকের ট্রিপ। আর যেহেতু রোজার ঈদে থাকছে পরিপূর্ণ বর্ষা। চারিদিকে সবুজের সমারোহ। এটাই সাজেক দেখার সবচাইতে উপযুক্ত সময়। আমাদের সাজেকে এবার থাকছে জুমঘর ইকো রিসোর্টে রাত্রি যাপন। মেঘ,…

অ্যাডভেঞ্চার যদি হয় আপনার নেশা, দুর্জয়কে জয় করার আনন্দে যদি চান বিভোর হয়ে যেতে, সর্বগ্রাসী আতঙ্ককে যদি চান খুব কাছ থেকে অনুভব করতে কিংবা টিকে থাকার ঘুমন্ত আদিম প্রবৃত্তিগুলোকে জাগিয়ে তুলে যদি খুঁজে পেতে চান বেঁচে থাকার তীব্র আনন্দ, তবে আজকের এই লেখাটি আপনার জন্যই! অ্যাডভেঞ্চারের নেশায় বুঁদ হয়ে থাকা আমাদের তেরো জনের দলটি গত বছর ছুটে গিয়েছিলাম মৌলভীবাজার, হামহাম নামের জীবন্ত জলপ্রপাতটির দেখা পেতে। তারচেয়েও বড় কথা, সেটা ছিল তিন নম্বর বিপদ সংকেতের মাঝে!…

একটি অলস বিকেল কিংবা সপ্তাহজুড়ে ব্যস্ততার এক ফাঁকে বুক ভরে প্রশান্তির স্বাদ নিতে কে না চায়? নাগরিক কোলাহল, অসহ্য যানজটের করাল থাবা থেকে আত্মাকে খোলা আকাশের নীল রঙের আলতো ছোঁয়া দিতে পারলে দাবানলে জ্বলতে থাকা মন যেন শান্ত হয়। খোলা প্রান্তর, মাথার উপরে সীমাহীন আকাশ, নদীর পাড়ে জেগে ওঠা চর, সবুজ প্রকৃতি, নদীতে বয়ে চলা পাল তোলা নৌকা, উজান গাঙে মাঝির ভাওয়াইয়া, ভাটিয়ালি গান সত্যিই একটি বিকেল কিংবা সন্ধ্যাকে রোমাঞ্চকর ও স্মৃতিমধুর করে তুলতে পারে।…

বাপের বাড়ি চাঁদপুর সদরে। মায়ের বাড়ি চাঁদপুর জেলার ফরিদগঞ্জ উপজেলার লোহাগড়া গ্রামে। ছোটবেলা থেকেই এই লোহাগড় গ্রাম, মঠ আর জমিদার বাড়ি নিয়ে অনেক কেচ্ছা শুনেছি। প্রাচীনত্ব, এ যেন মায়ার আরেক রূপ। কিন্তু বর্তমানে দৃশ্যমান এই মায়ার অতীত রূপটা মোটেও এত কমনীয় ছিল না। বরং তা ছিল অনেক বেশি নৃশংস। প্রায় ২০০ বছর আগে চাঁদপুরের ফরিদগঞ্জ চান্দ্রাবাজার থেকে দেড় কিলোমিটার দক্ষিণ-পশ্চিমের এক গ্রামের জমিদার ছিলেন রামমোহন রায়। তার দুই ছেলে লোহ ও গহড়। এই দুই ভাইয়ের নামে…