রাজস্থানের কথা মাথায় আসলেই দুটো মূল ব্যাপার মাথায় চলে আসে। একটা হলো রাজস্থানের গরম আর দ্বিতীয় হলো সারা বছর ধরে চলতে থাকা রাজস্থানের বারো মাসের তেরো পার্বণ। সংস্কৃতি আর রঙিন উৎসবের প্রদেশ রাজস্থান, ঐতিহ্যের প্রদেশ রাজস্থান।
রাজস্থান গিয়ে সেখানকার উৎসবে যোগ না দিলে, উৎসবের রঙ, রূপ আর গন্ধে মেতে না উঠলে ১৫ আনাই বৃথা রাজস্থান ভ্রমণের। জীবন, সংস্কৃতি, ঐতিহ্য, প্রকৃতির দারুণ মেলবন্ধনে রাজস্থানের প্রতিটি পার্বণ মনে জাগায় প্রাণের স্পন্দন। আজকে আমাদের আয়োজন সেইসব বর্ণিল উৎসব নিয়ে।

১. রাজস্থান ইন্টারন্যাশনাল ফোক ফেস্টিভাল, যোধপুর

প্রতি বছর শারদ পূর্ণিমায় যখন সবচেয়ে উজ্জ্বল চাঁদের দেখা মেলে আকাশে, সেই আকাশের নিচে রাজস্থানের যোধপুরের মেহরাংগড় দূর্গে আয়োজন করা হয় রাজস্থানের সবচেয়ে বড় লোকগীতি আর চারুকর্মের আন্তর্জাতিক উৎসব Rajasthan International Folk Fesitival (RIFF)।
যোধপূরের মহারাজা আর রোলিং স্টোনের স্যার মাইক জ্যাগারের পৃষ্ঠপোষকতায় বহু বছর ধরে চলে আসা এই উৎসবে প্রতি বছর বিশ্বের বিভিন্ন জায়গা থেকে আসা ২০০ এরও বেশি শিল্পী অংশগ্রহণ করেন। সঙ্গীত আর চারুকর্ম প্রেমীদের জন্য এই উৎসব অনেকটা মহাযজ্ঞের মতো, সুরে সুরে তারা মেতে ওঠে সার্বজনীন আনন্দে।

রাজস্থান ইন্টারন্যাশনাল ফোক ফেস্টিভাল, ছবিঃ triptaptoe.com

২. ডেসার্ট ফেস্টিভাল, জয়সাল্মির

ফেব্রুয়ারির দিকে টানা ৩ দিনের জন্য জয়সাল্মিরে আয়োজন করা হয় ডেসার্ট ফেস্টিভাল। বাহারী রঙয়ের পোশাক, মরুভূমির জীবন আর হরেক রকমের আনন্দমেলার আয়োজন করে থাকে রাজস্থানের পর্যটন উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ। জয়সাল্মিরের আকাশে-বাতাসে ছড়িয়ে পড়ে ঐতিহ্যবাহী গান আর নাচের আমেজ।
মরুভূমির উৎসব হিসেবে এই পার্বণে মূল আকর্ষণ থাকে উটের দৌড়, শারীরিক কসরত, সবচেয়ে বড় গোঁফের প্রতিযোগিতা, পাগড়ি বাঁধার প্রতিযোগিতা, মিস্টার ডেসার্ট প্রতিযোগিতা। সাথে রাজস্থানের সুস্বাদু খাবার-দাবার আর হাতের তৈরি বিভিন্ন জিনিস স্বরণিক তো থাকেই উৎসবকে প্রাণ দিতে।

ডেসার্ট ফেস্টিভাল, ছবিঃ rajasthantouroperator.com

৩. পুশকার মেলা, পুশকার

রাজস্থানের পুশকার শহরের পুশকার লেকের পাশেই আয়োজন করা হয় ৫ দিন ব্যাপী ভারতীয় মরুভূমির সর্বকালের সেরা উৎসব পুশকার মেলা। কার্তিক একাদশীর তিথিতে আয়োজিত এই মেলায় মূলত উটের বিকিকিনি চলে।
ভ্রমণ পিপাসুদের জন্য এই মেলার বিশেষ আর্কষণ এই বিকিকিনি থেকে শুরু করে চারুকর্ম, ঐতিহ্যবাহী সঙ্গীত, পুতুল নাচ, যাযাবর নৃত্য, দৌড় প্রতিযোগিতা, মজাদার বিভিন্ন জলখাবার, উটের দুধ-পনির, রাজস্থানি গয়না ইত্যাদি।

পুশকার মেলা, ছবিঃ pushkarcamelsafari.com

৪. তেজ ফেস্টিভাল, জয়পুর

রাজস্থানের রাজধানী জয়পুরে বর্ষাকালের ঠিক আগে আগে বিশাল এক উৎসবের আয়োজন করা হয় যেখানে বৃষ্টির আবির্ভাব আর নারীরা তাদের স্বামীর প্রতি ভালোবাসা প্রদর্শনের স্মারক হিসেবে পালন করে, যার নাম তেজ উৎসব। পশ্চিম ভারতের সবচেয়ে জমকালো উৎসবগুলোর মধ্যে অন্যতম এই তেজ উৎসবে নারীরা উপোস করে নিজেদের স্বামীদের জন্য আর হাত রাঙায় বাহারি মেহেদি দিয়ে।
হিন্দু সম্প্রদায়ের ভগবান শিব আর পার্বতীর মিলন উদযাপন করা হয় এই উৎসবে। দেবী পার্বতীর বিশাল প্রতিকৃতি নিয়ে র‍্যালি বের হয় জয়পুরের রাস্তায় যা স্থানীয় এবং ভ্রমণকারীদের মূল আকর্ষণ থাকে সবসময়। নৃত্য, সঙ্গীত, মশলাদার খাবার তো উপরি পাওনা হিসেবে থাকছেই।

তেজ ফেস্টিভাল, ছবিঃ jaipurcityblog.com

৫. গাঙ্গুয়ার ফেস্টিভাল, জয়পুর

জয়পুরের আরেকটি বড় উৎসব এই গাঙ্গুয়ার ফেস্টিভাল। এই উৎসবটিও নারীরা আয়োজন করে থাকেন দেবী পার্বতীর ঘরে ফেরার উপলক্ষে। দেবী গৌরির প্রতিকৃতি নিয়ে র‍্যালি হয় এই উৎসবে, হাতির মহড়াও থাকে কেন্দ্রবিন্দুতে। পুরনো পালকি, ঘোড়ার গাড়ি, নৃত্য-সঙ্গীতে মেতে ওঠে সেখানকার সকল প্রাণ আর উৎসবটি শেষ করা হয় আতশ বাজির ঝলকানিতে।

গাঙ্গুয়ার ফেস্টিভাল, ছবিঃ pinkcityroyals.com
৬. জয়পুর লিটারেচার ফেস্টিভাল, জয়পুর

অন্যান্য উৎসবের মতো জমকালো না হলেও সাহিত্য জগতে জয়পুর লিটারেচার ফেস্টিভালের চাহিদা অনেক। সম্পূর্ণ বিনামূল্যে সাহিত্যচর্চা থেকে শুরু করে উপন্যাস রচনা ও আলোচনা, প্রথম উপন্যাসের মোড়ক উন্মোচন, সাহিত্য পঠন- কী না হয় এই উৎসবে! জয়পুরের ডিজ্ঞি প্রাসাদে আয়োজিত এই উৎসব উৎসাহিত করে তরুণ লেখকদের আর বিশাল মিলনমেলার সুযোগ করে দেয় বিশ্বের সব নামীদামী সাহিত্যিকদের।

জয়পুর সাহিত্য উৎসব, ছবিঃ tripoto.com
৭. নাগাউর মেলা, নাগাউর

ভারতের দ্বিতীয় বৃহৎ মেলা নাগাউর মেলার আয়োজন করে থাকে ভারতের পশু হাজবেন্ডারী বিভাগ। মূলত পশু বিকিকিনির এই বিশাল মেলায় মূল অতিথি হলো পশুর মালিকরা। গরু, বাছুর, উট, ঘোড়া, ষাঁড় সবই বিক্রি হয় এই মেলায়।
প্রতি বছর প্রায় দুই লাখেরও বেশি পশু মালিক অংশগ্রহণ করেন এই মেলায়, বিকিকিনির পাশাপাশি চলে বিভিন্ন দৌড় প্রতিযোগিতা, সঙ্গীত, নৃত্য। রাজস্থানের আসল রাজপুতের স্বাদ নিতে চাইলে এই মেলার বিকল্প নেই।

নাগাউর মেলা, ছবিঃ ohmyrajasthan.com
৮. সামার অ্যান্ড উইন্টার ফেস্টিভাল, মাউন্ট আবু

রাজস্থানের হিলস্টেশনের লৌকিকতার উষ্ণতা আর ঐতিহ্য তুলে ধরতে বছরের মে এবং ডিসেম্বর মাসে দুটি আলাদা উৎসবের আয়োজন করা হয় পাহাড়ে। ৩ দিন ব্যাপী প্রতিটা অনুষ্ঠানেই থাকে সারা শহর জুড়ে র‍্যালির ডামাডোল, লোকনৃত্য, সঙ্গীত আর জমকালো আতশবাজির ব্যবস্থা। প্রতিবছর ভ্রমণপিপাসু মানুষ এখানে ছুটে আসে পাহাড়ের আতিথেয়তা আর প্রকৃতির অনন্য মেলবন্ধনের স্বাদ নিতে।

সামার অ্যান্ড উইন্টার ফেস্টিভাল, ছবিঃ mytripdesire.com

৯. ঘুড়ি উৎসব, যোধপুর

মকর সংক্রান্তির তিথিতে যোধপুরে আয়োজন করা হয় ৩ দিন ব্যাপি যোধপুর আন্তর্জাতিক ঘুড়ি উৎসব। যোধপুরের আকাশে সেই তিন দিনে দেখা যায় রঙ-বেরঙের শত শত ঘুড়ি। হেলিকপ্টার থেকে মরুভূমির আকাশে ছেড়ে দেয়া বিভিন্ন আকারের সেসব ঘুড়ি মেলায় আকাশকে মনে হয় রঙিন ক্যানভাস। বাচ্চাদের বেলুন উড়ানো এই উৎসবকে করে তোলে আরো দৃষ্টিনন্দন ও পরিপূর্ণ।

যোধপুর আন্তর্জাতিক ঘুড়ি উৎসব, ছবিঃ mateshwaritours.com

১০. উট উৎসব, বিকানের

মরুভূমির জাহাজ উটের প্রতি সম্মান প্রদর্শন করতে রাজস্থানের বিকানেরে জানুয়ারির দিকে আয়োজন করা হয় ২ দিন ব্যাপী উট উৎসব। রাজস্থানের অন্যান্য উৎসবের মতো এই উৎসবেও রয়েছে ঐতিহ্যবাহী লোক সংস্কৃতির আয়োজন আর আতশবাজির ব্যবস্থা। তবে এই উৎসবের মূল আকর্ষণ হলো বিকানেরের জুনাগড় দূর্গের পশ্চাৎ অংশে উটের সজ্জিত প্রদর্শনী, উট দৌড়, উটের বিভিন্ন খেলা। বিকানেরের জুনাগড় দূর্গে উৎসবের দুই দিনে দেখা মেলে শত শত উটের।

উট উৎসব, ছবিঃ getsholidays.com

ফিচার ইমেজ: planetwayround.com

Author

Write A Comment